শিখর ধাওয়ান ভারতের ক্রিকেট অঙ্গনের এক সুপরিচিত মুখ। তিনি ভারতের জাতীয় ক্রিকেট দলের একজন অন্যতম ক্রিকেট খেলোয়াড়। তিনি ভারতের জাতীয় ক্রিকেট দলের হয়ে অনেক আর্ন্তজাতিক ম্যাচে অংশগ্রহন করেছেন। তিনি তার খেলার জীবনে পেয়েছেন অনেক সফলতা এবং সম্মাননা। তিনি ক্রিকেট অঙ্গনে একজন সফল খেলোয়াড় হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছেন।
করোনাভাইরাসকে আর অবহেলা করার উপায় নেই। সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি নিতে চাইছেন না কেউই। ভারতীয় ওপেনার শিখর ধাওয়ান যেমন কোয়ারেন্টিনে আছেন। জার্মানি থেকে ফিরে কোয়ারেন্টিনে থাকা এই ওপেনার তাঁর দেশের করোনা প্রতিরোধ ব্যবস্থারও প্রশংসা করেছেন। কিছুদিন আগে জার্মানি থেকে ভারতে এসেছেন ধাওয়ান। এসে কোয়ারেন্টিনেও গেছেন। ভারতে বিদেশ থেকে ফেরা নাগরিকদের সরকারি কোয়ারেন্টিনে নেওয়া হচ্ছে। কিন্তু সেখানকার ব্যবস্থাপনা ও পরিবেশ নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে। কিন্তু নিজের ফেসবুক পেজে উল্টো সরকারি কোয়ারেন্টিন ব্যবস্থার প্রশংসা করেছেন ধাওয়ান।

কোয়ারেন্টিন সেন্টার নিয়ে একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন ধাওয়ান। সেখানে বলেছেন, ’শহর থেকে ৭০ কিলোমিটার দূরে সবাইকে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। পুরো বিল্ডিং জীবাণুমুক্ত করা হয়েছে। দিল্লি পুলিশ, মন্ত্রী-সবাই এখানে আছেন এবং নিজেদের কাজ পরিপূর্ণভাবে পালন করছেন।’ ভিডিওতে হিন্দিতে কথা বলছিলেন ধাওয়ান। ফেসবুক পোস্তে আরও বলেছেন, ’সবাইকে আলাদা রুম দেওয়া হয়েছে। খাওয়ার পানি, সুস্বাদু খাবার, নতুন স্যান্ডেল, মশা তাড়ানোর ওষুধ দেওয়া হয়েছে। অন্যান্য সব প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাই আছে। সরকার সব ব্যবস্থাই করেছে।’

ভিডিওতে ধাওয়ান আরও বলেছেন, করোনাসংক্রমণের এই অবস্থায় দেশে ফেরা নিয়ে ভয়ে ছিলেন। কিন্তু দেশে এসে দেখেছেন সরকারি ব্যবস্থাপনায় কোয়ারেন্টিনের অবস্থা বেশ সন্তোষজনক। নিজের ভিডিওতে দিল্লি সরকার, পুলিশ বিভাগ এবং ভাইরাস সংক্রমণ এড়াতে ডাক্তারদের প্রচেষ্টার প্রশংসা করেছেন। করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে আফগানিস্তান, ফিলিপাইন ও মালয়েশিয়া থেকে ভারতে প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, বিশ্ব জুড়ে করোনাভাইরাসকে ঘিরে ভীতির মধ্যে রয়েছে। করোনাভাইরাসের ছোবল থেকে রেহাই পায়নি ভারত। ভারতের বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্যে করোনাভাইরাসের প্রভাব দেখা দিয়েছে। ভারত সরকার করোনাভাইরাস মোকাবিলার জন্য অনেক ধরনের পদক্ষেপ গ্রহন করেছে। এবং এরই লক্ষ্যে কাজ করছে সরকারের দায়িত্ব প্রাপ্ত ব্যক্তিরা।