আইসিটি মামলায় কবি হেনরীকে গ্রেফতার প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, আমি বিষয়টি শুনেছি। পুরোপুরি জানি না। পুরোপুরি বিষয়টা না জেনে মন্তব্য করা সমীচীন হবে না। তবে আমরা চাই আইসিটি অ্যাক্টে কারও যেন কোন হয়রানি না হয়।
বুধবার (১৫ মে) সচিবালয়ে তথ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে আসেন ভারতীয় হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলী। সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন।

সরকার হতাশায় নিমজ্জিত হয়েছে- বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করেন তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপিই অকার্যকর হয়ে গেছে। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নের মহাসড়কে অদম্য গতিতে এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ। স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে উঠে এসে এখন মধ্যম আয়ের দেশ বাংলাদেশ।

তিনি বলেন, খাদ্য ঘাটতির দেশ থেকে খাদ্য উদ্বৃত্ত দেশে রূপান্তরিত হয়েছে বাংলাদেশ। মানুষের মাথাপিছু আয় ৬০০ ডলার থেকে প্রায় দুই হাজার ডলারে উন্নীত হয়েছে। গড় আয়ু ৬৭ বছর থেকে ৭৩ বছরে উন্নীত হয়েছে, রাষ্ট্র এগিয়ে যাচ্ছে।

খালেদা জিয়াকে পুরনো কারাগার থেকে কেরানীগঞ্জের নতুন কারাগারে স্থানান্তরের বিষয়ে বিএনপির অখুশি হওয়ার কোন কারণ দেখছেন না তথ্যমন্ত্রী।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখার সময় বিএনপির পক্ষ থেকে তো বারবার বলা হচ্ছিল যে, খালেদা জিয়াকে পুরনো ভবনে স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশে রাখা হয়েছিল। যদিও সেখানে রাখার জন্য সেই ভবনকে নতুনভাবে তৈরি করা হয়েছিল, সেটিকে মর্ডানাইজ করা হয়েছিল, সব সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হয়েছিল। এরপরও বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হচ্ছিল, একটি পুরনো ভবনে নির্জন কারাগারে তাকে রাখা হচ্ছিল, বলেন তথ্যমন্ত্রী।

তিনি আরও বলেন, যেহেতু পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারকে জাদুঘরে রূপান্তরিত করা হবে এবং নতুন কারাগারে নতুন ভবন, সেটি অনেক মর্ডান ভবন। সেজন্য এখান থেকে স্থানান্তরিত করার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। কেরানীগঞ্জের কারাগারে সব সুযোগ-সুবিধা আছে। সুতরাং বিএনপির তো খুশি হওয়ার কথা।

সূত্র:বিডি২৪লাইভ