ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে যাওয়ার পথে নিখোঁজ হওয়ার এক বছর তিন মাস পর সুস্থ শরীরেই বাসায় ফিরেছেন সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামান।
বিষয়টি নিশ্চিত করেছে তার পরিবার।
সোমবার (১৬ মার্চ) সাবেক এ রাষ্ট্রদূতের মেয়ে শবনম জামান ফেসবুকের এক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ’আমার বাবা সাড়ে ১৫ মাস বা ৪৬৭ দিন পর ফিরে এসেছেন। আমি ও আমার বোন কৃতজ্ঞ তাদের কাছে, যারা এই সময় আমাদের সহযোগিতা করেছেন।’
তবে এ বিষয়ে আর কিছু না জানতে চাইতেও সবাইকে অনুরোধ করেছেন তিনি।
এদিকে, ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লতিফুর রহমান বলেন, আমরা শুনেছি মারুফ জামান বাসায় ফিরেছেন। আমাদের পুলিশ কর্মকর্তারা তাদের বাসায় গেছেন।
প্রসঙ্গত, মারুফ জামান রাষ্ট্রদূত হিসেবে ২০০৮ সালের ৬ ডিসেম্বর থেকে ২০০৯ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ভিয়েতনামে কর্মরত ছিলেন। এর আগে তিনি কাতারে রাষ্ট্রদূত ও যুক্তরাজ্যে কাউন্সেলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৩ সালে তিনি অবসর নেন। পরিবারের সঙ্গে তিনি ধানমন্ডির বাসায় থাকতেন।
২০১৭ সালের ৪ ডিসেম্বর ধানমন্ডির ৯/এ বাসা থেকে বিমানবন্দর যাওয়ার উদ্দেশে বের হয়ে নিখোঁজ হন মারুফ জামান।
ঘটনার দিন সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে তিনি ধানমন্ডির বাসা থেকে প্রাইভেটকারে বিমানবন্দরের দিকে যাচ্ছিলেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় তার মেয়ে সামিহা জামান বিদেশ থেকে বিমানবন্দরে এসে পৌঁছানোর কথা ছিল। মেয়েকে আনতেই তিনি বিমানবন্দরে যাচ্ছিলেন। কিন্তু এরপর থেকেই তার আর কোনও খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি বিমানবন্দর যাননি, বাসায়ও ফিরে আসেননি। তার কোনও খোঁজ না পেয়ে মেয়ে সামিহা জামান ধানমন্ডি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।
নিখোঁজ হওয়ার দিন রাত পৌনে ৮টার দিকে মারুফ ফোন করে গৃহকর্মীকে বলেছিলেন, বাসায় কেউ গেলে তাকে যেন কম্পিউটার দিয়ে দেওয়া হয়। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই তিন ব্যক্তি বাসায় এসে তার ল্যাপটপ, কম্পিউটারের সিপিইউ, একটি মুঠোফোন ও একটি ক্যামেরা নিয়ে গিয়েছিল।
এছাড়া, নিখোঁজ হওয়ার পরদিন মারুফ জামানের ব্যক্তিগত গাড়িটি ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ৩০০ ফুট সংযোগ সড়ক থেকে উদ্ধার করে পুলিশ।
তবে ১৫ মাসেও এসব ঘটনার কিনারা করতে পারেনি পুলিশ।

সূত্র:bdnews24