রাজধানীর বনানীতে বহুলতল ভবন এফ আর টাওয়ারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে উদ্ধার কাজে অংশ নিয়ে আহত হওয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়া ফায়ার সার্ভিস কর্মী সোহেল রানা। সোহেল রানাকে স্পাইডারম্যান, সুপারম্যান হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন অভিনেত্রী শাওন।
তিনি এক বার্তা লেখেন, বড়পুত্র নিষাদ ছোটবেলায় ফায়ার ফাইটার হতে চাইতো। এই সাড়ে চার কি পাঁচ বছর বয়সে! আমরা তখন নিউইয়র্কে, কর্কট রোগের সাথে যুদ্ধে ব্যস্ত। থাকতাম জ্যামাইকাতে। বাঙালি অধ্যুষিত এলাকা- প্রায় এক দিন পর পরই কোনো না কোনো বাসায় পোঁ পোঁ শব্দ করে ফায়ারট্রাক আসতো! টকটকে লাল রঙের বিশাল গাড়ি।

শাওন লেখেন, সেই গাড়ির সাইরেন শুনলেই নিষাদ দৌড়ে জানালার কাছে গিয়ে দাঁড়াতো। তার এক বছর বয়সী ছোট ভাই দৌড়াতো তার পিছে। যতক্ষণ গাড়ির শব্দ শোনা যেত ততক্ষণ তারা জানালার পাশে! নিষাদের চকচকে চোখ-
"মা বড় হয়ে আমি ফায়ার ফাইটার হবো!"
"আচ্ছা বাবা। বড় হও- তারপর দেখা যাবে।"

গত কয়েকদিন ধরে এই কথাগুলো মনকে বড্ড পোড়াচ্ছে। আমার নিষাদ বড় হয়ে সত্যি সত্যি ফায়ারফাইটার হতে চাইলে আমি কি রাজি হবো! সোহেল রানা নামের এই হৃদয়বান মানুষটির মা কতো না স্বপ্ন নিয়ে তাঁর ছেলেকে বড় করেছেন! এই মানুষটাও হয়তো ছোটবেলায় সুপারহিরোদের গল্প পড়ে সেরকম কিছু হতে চাইতেন! স্পাইডারম্যান.., সুপারম্যান..! আচ্ছা ’ফায়ারম্যান’ নামে কোনো সুপারহিরো’র গল্প নেই কেন..?