দীর্ঘ ২৮ বছর পর সোমবার (১১ মার্চ) অনুষ্ঠিত হচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচন। নির্বাচনের সময়ে গণমাধ্যমের ওপর বেশ কিছু কড়াকড়ি আরোপ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। গণমাধ্যমের ওপর আরোপিত এসব কড়াকড়িকে ’নির্বাচনটিকে বৃহদাংশে পর্যবেক্ষণের বাইরে রাখার জন্যে’ বলে মনে করছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির আইন বিভাগের অধ্যাপক আসিফ নজরুল।
রোববর গণমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, "গণমাধ্যমের ওপর কড়াকড়ি কেনো? গত সংসদ নির্বাচনে দেখা গেছে- নির্বাচনটিকে পর্যবেক্ষণের বাইরে রাখার জন্যে বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছিলো। সেই ব্যবস্থাটিই এখন পুরোপুরি অনুসরণ করা হচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মডেলে যতোটুকু করা যায়।"

তিনি মনে করেন, "(ডাকসু নির্বাচনকে কেন্দ্র করে) অনেকটা অভূতপূর্বভাবে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে।… নির্বাচনে কারচুপি এড়ানোর জন্যে একমাত্র সেফগার্ড হতে পারতো গণমাধ্যম। গণমাধ্যমের ওপর যে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে এবং পোলিং এজেন্ট থাকার বিষয়ে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে তা এই নির্বাচনটিকে বৃহদাংশে পর্যবেক্ষণের বাইরে রাখার জন্যে।"

অস্বচ্ছ ব্যালটবাক্সের ব্যাপারে তিনি বলেন, "এর একটাই কারণ থাকতে পারে তারা হয়তো আগেই কিছু ব্যালটবাক্স ভরে রাখতে চায় এবং সেটা কেউ দেখুক তা তারা চায় না। এছাড়া, অন্য কোনো কারণ তো হতে পারে না। বাংলাদেশের নির্বাচনে বহু বছর থেকে প্রতিষ্ঠিত যে স্বচ্ছ ব্যালটবাক্স দরকার।"

সূত্র:somoynews