জনগণকে যারা ঋণের জালে জড়িয়েছে তাদের ছাড় দিবেন বলে জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তাতে জীবন গেলেও কোনো আপসোস নেই বলে উল্লেখ করেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী।
তিনি বলেছেন, যেসব দুর্নীতিবাজ রাজনীতিক দেশকে ভয়াবহ ঋণের মধ্যে ফেলেছেন তাদেরকে বিচার আওতায় আনা হবে, কাউকে ছাড়া হবে না। গতকাল মঙ্গলবার রাতে জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে তিনি এ অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

পার্সটুডে বলছে, জাতীয় সংসদে বার্ষিক খসড়া বাজেট পেশ ও গুরুত্বপূর্ণ কয়েকজন রাজনৈতিক নেতাকে আটকের পর তিনি এমন ঘোষণা দিলেন।

আটক ব্যক্তিরা হলেন, পাঞ্জাব প্রাদেশিক পরিষদের বিরোধী নেতা হামযা শাহবাজ এবং সাবেক প্রেসিডেন্ট আসিফ আলী জারদারি। পাকিস্তান ন্যাশনাল অ্যাকাউন্টাবিলিটি ব্যুরো তাদের আটক করে। এ ছাড়া লন্ডনের পুলিশ মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্টের প্রতিষ্ঠাতা আলতাফ হুসেইনকে আটক করেছে।

ইমরান খান বলেন, দেশের অর্থনীতিকে কিছুটা স্থিতিশীল করার পর এখন তিনি দুর্নীতিবাজ রাজনীতিকদের দিকে নজর দেবেন।

তিনি বলেন, দেশকে যারা এই ভয়াবহ অবস্থার মধ্যে ফেলেছে তিনি তাদের দিকে বেশি গুরুত্ব দেবেন। এ জন্য উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন কমিশন গঠন করা হবে। আর এ কমিশনের প্রধান কাজ হবে কীভাবে দুর্নীতিবাজরা গত ১০ বছরে দেশের ঘাড়ে যে ২৪ হাজার বিলিয়ন রুপি ঋণের বোঝা চাপিয়ে দিয়েছে তা তদন্ত করে বের করা।

পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, ’আমি আন্দোলনের ভয়ে ভীত হব না, আমাকে ব্ল্যাকমেইল করা যাবে না। এমনকি আমার জীবনও যদি চলে যায় তবু আমি এই চোরগুলোক ছাড়ব না। আমি আল্লাহর কাছে মুনাজাত করেছি- আমাকে একটিবার সুযোগ দিন- আমি তাদেরকে ছাড়ব না।’