মঙ্গলবার পুলিশে অভিযোগ জানিয়ে মহিলা দাবি করেছিলেন, ভরদুপুরে বড়বাজারের পোস্তায় দুই দুষ্কৃতী তাঁর গয়না লুঠ করেছে। কিন্তু তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারল, পুরোটাই মহিলার মনগড়া গল্প। কারণ, পার্টি করার জন্য টাকার দরকার ছিল ওই মহিলার।
তদন্তে নেমে পুলিশ প্রথমে ওই এলাকার সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখে। সেখানে মহিলার হেঁটে যাওয়ার ছবি থাকলেও ডাকাতির কোনও ছবি ধরা পড়েনি। লেকটাউন এলাকার বাসিন্দা রীতা গর্গ নামে ওই মহিলা পুলিশের কাছে দাবি করেছিলেন, সোমবার দুপুরে পোস্তায় ডাকাতির ঘটনা ঘটে। তাঁকে একটি গলির মধ্যে নিয়ে গিয়ে দুই দুষ্কৃতী অস্ত্র দেখিয়ে সোনার গয়না লুঠ করে বলেই অভিযোগ করেন ওই গৃহবধূ। ঘটনার জেরে আতঙ্কে তিনি সংজ্ঞাহীন হয়ে রাস্তায় পড়ে যান বলেও দাবি করেন ওই তিনি।
 কিন্তু মহিলার দাবির স্বপক্ষে কোনও মিলই খুঁজে পায়নি পুলিশ। এবার পাল্টা মাঝবয়সি ওই গৃহবূধূর উপরেই সন্দেহ হয় পুলিশের। পাল্টা তাঁকে জেরা করতে শুরু করেন তদন্তকারীরা। জেরার মুখে আসল ঘটনা স্বীকার করেন ওই গৃহবধূ। তিনি স্বীকার করেন, বন্ধুদের সঙ্গে পার্টি করার জন্য টাকার প্রয়োজন ছিল তাঁর। মাঝেমধ্যেই এই ধরনের পার্টিতে যেতেন তিনি। তাই পোস্তার একটি দোকানে গিয়ে তিরিশ হাজার টাকার বিনিময়ে নিজের একজোড়া বালা বিক্রি করে দেন তিনি। কিন্তু বাড়ির লোকের কাছে গোটা ঘটনা লুকোতেই ডাকাতির গল্প ফাঁদেন। শেষ পর্যন্ত পুলিশে অভিযোগ জানাতে গিয়েই ফেঁসে গেলেন ওই গৃহবধূ। 
সিসিটিভি ফুটেজে মহিলাকে দেখা গেলেও লুঠের প্রমাণ পায়নি পুলিশ, দেখুন সেই ভি়ডিও