বৌদ্ধ ভিক্ষুর যৌন লালসার শিকার এক নাবালক শিষ্য৷ জানা গিয়েছে, ওই বৌদ্ধ ভিক্ষুক নিজের শিষ্যের সঙ্গে অপ্রাকৃতিক যৌন সম্পর্ক স্থাপন করেছিলেন৷ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ৷
সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, ১৪ বছরের ওই শিষ্য পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করে৷ সে জানায়, ওই আধ্যাত্মিক গুরু তাদের শরীরে ব্যথা হওয়ার কারণে নিজের ঘরে ডেকে আনে৷ এরপরেই সে তার সঙ্গে অপ্রাকৃতিক যৌন সম্পর্ক তৈরি করে৷ শিষ্য একাধিকবার প্রার্থনা করলেও তার উপর দয়া দেখায়নি ওই বৌদ্ধ ভিক্ষু৷ এরপরেই কোনও প্রকারে ওই ঘর থেকে ফিরে আসে৷



ডেপুটি এসপি সতীশ কুমার জানিয়েছেন, অভিযুক্ত ভিক্ষুর বিরুদ্ধে ৩৭৭ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে৷ অভিযুক্তের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ হলে তার ১০ বছরের জেল হতে পারে৷ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে গয়া সেন্ট্রাল জেলে রাখা হয়েছে৷ তিনি আরও জানিয়েছেন, নির্যাতিত শিষ্যকে মেডিকেল টেস্টের জন্য পাঠান হয়েছে৷ এরপরেই সিআরপিসির ১৬৪ ধারায় তার বয়ান দায়ের করা হবে৷

উল্লেখ্য, গয়ায় এই ধরণের ঘটনা প্রথম নয়৷ এরপরেই মাদ্রাসার ইমামের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছিল৷

এই ঘটনায় বৌদ্ধ গয়া নাগরিক পরিষদের প্রধান সুরেশ সিং জানিয়েছেন, এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর অনেকেই অবাক হয়েছেন৷ কিন্তু গয়ার মানুষের কাছে এতে নতুনত্ব কিছুই নেই৷ তার অভিযোগ, এই ধরণের ঘটনার প্রতিকারের জন্য গয়ায় কোনও ব্যবস্থা নেই৷