ভারতের ঝাড়খণ্ডের পালামৌ জেলার সদ্য বিবাহিত জীবন শুরু করেছিলেন এক তরুণী। জীবনের প্রতিটি মুহূর্তে স্বামীকে সঙ্গে পাবেন। বিপদে-আপদে রক্ষা করবেন তিনিই। এমন শপথ নিয়েই শুরু হয় প্রতি স্বামী স্ত্রী জীবন।
কিন্তু বাস্তব যে এতটা নিষ্ঠুর, তা হয়তো স্বপ্নেও ভাবেননি তিনি। রক্ষকই হয়ে উঠল ভক্ষক। স্ত্রীর মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে ধর্ষণ করল স্বামী এবং তার দুই বন্ধু। গণধর্ষণ কাণ্ডে তিনজনের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে।

পালামৌ জেলার ডিএসপি হিরালাল রবি জানান, রাহাইয়া গ্রামের আফজল আনসারির সঙ্গে সদ্য বিয়ে হয় ওই গ্রামেরই এক তরুণীর। তরুণীর অভিযোগ, গত বুধবার রাতে দুই বন্ধু বাবলু সিং এবং আফজাল মিঞাকে সঙ্গে নিয়ে বাড়ি ফেরে তার স্বামী আনসারি।

তারপরই বন্ধুদের সামনে নববধূকে ধর্ষণ করে আনসারি। শুধু তাই নয়। স্বামীর অনুমতিতেই দুই বন্ধুর হাতে ধর্ষিতা হতে হয় তরুণীকে। এমনকী মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে পুরো ঘটনার ভিডিও রেকর্ডিংও করে তারা। এই ঘটনার কথা ফাঁস হলে ফল ভাল হবে না বলে তরুণীকে হুমকিও দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার সকালে কোনোক্রমে সেখান থেকে পালিয়ে নিজের প্রাণ বাঁচান তরুণী। বাবা-মাকে সব জানালে তারা নির্যাতিতাকে নিয়ে থানায় আসেন। কিন্তু থানায় তাদের অভিযোগ নিতে অস্বীকার করে পুলিশ। শুক্রবার ডিএসপির নির্দেশে অভিযোগ দায়ের করা হয়।