শুধু স্বামীরাই কেন মৌখিক ডিভোর্স বা ‘তিন তালাক’ দেওয়ার অধিকারী, তার কারণ দর্শাল অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড (AIMPLB)। শরিয়তের উল্লেখ করে মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড দাবি করে, সাধারণত স্ত্রীদের তুলনায় স্বামীদের আবেগ অনেক বেশি সংযত হয়। ফলে হঠকারী সিদ্ধান্ত নেওয়ার ঝুঁকি কম। যে কারণে, শরিয়ত মৌখিক বিবাহবিচ্ছেদ বা তিন তালাকের অধিকার শুধু পুরুষদেরই দিয়েছে।
তিন তালাককে অসাংবিধানিক ঘোষণার আর্জি জানিয়ে শায়রা বানু সহ কয়েকজন মুসলিম মহিলা অ্যাপেক্স কোর্টে পিটিশন ফাইল করেন। তার প্রেক্ষিতেই শীর্ষে আদালতে ৬৮ পাতার এফিডেভিট দিয়ে অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড জানায়, শরিয়ত এই কারণেই পুরুষদের মৌখিক ডিভোর্সে অধিকার দিয়েছে, কারণ, পুরুষরা সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে অনেক বেশি শক্তিশালী। আবেগের উপর পূর্ণনিয়ন্ত্রণ থাকায়, হঠকারী সিদ্ধান্তের সম্ভাবনা কম।

ইসলাম ধর্মে এই তিন তালাককে স্বামীদের মৌলক অধিকার হিসেবেই গণ্য করা হয়। এই তিন তালাকের স্বপক্ষে সওয়াল করতে গিয়ে মুসলিম ল বোর্ড আরও দাবি করে, বিবাহবিচ্ছেদের এটা সহজতর পদ্ধতি। দুটি সম্পর্ক যখন ভেঙে যায়, তখন দীর্ঘসময় পর্যন্ত অপেক্ষা না-করে, দ্রুত বিয়ে ভাঙার এটা সহজ পদ্ধতি।

বহু বিবাহের স্বপক্ষেও সওয়াল করে অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড। তাদের ব্যাখ্যায়, বহু বিবাহ বন্ধ হলে বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক বা অবৈধ যৌনতা বাড়বে। যে কারণে ইসলাম ধর্মে একজন মুসলিম পুরুষের ক্ষেত্রে চার জন পর্যন্ত স্ত্রী রাখার অনুমতি রয়েছে।