বিনোদন অঙ্গনের একটি বিশেষ মাধ্যম গান। বাংলাদেশে অনেক নামি-দামি গুনী কন্ঠশিল্পী রয়েছে। তবে এই গুনী শিল্পীদের ভিড়ে নতুনরা ও নিজেদের জায়গা করে নিচ্ছে বিনোদন অঙ্গনে। তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে নতুন কন্ঠশিল্পীরা। তারা তাদের গানের মধ্য দিয়ে অর্জন করছে অনেক দর্শক জনপ্রিয়তা এবং পাচ্ছেন অনেক সফলতা। তারা দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশেও অর্জন করছে সফলতা। সমাজের প্রতিটি জায়গায় রয়েছে প্রতিযোগিতা। এই সকল প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়েই নিজের সাফল্য অর্জন করতে হয়।
বর্তমান সময়ের তরুণ কণ্ঠশিল্পী ঐন্দ্রিলা আক্তার বিথী। দেশের সংগীত জগতে এখন নতুনরাই রাজত্ব করছেন। তারা গান গাইছেন বিভিন্ন অ্যালবাম ও মিউজিক ভিডিওতে। সেগুলো ইউটিউবসহ অনলাইনের বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে ছড়িয়ে পড়াতে বেশ পরিচিতিও পাচ্ছেন। ঐন্দ্রিলা তাদের অন্যতম। এই শিল্পী বলেন, ’গান আমার আত্মার খোরাক আর নাচ মিশে আছে রক্তে। এ দুটিকে নিয়েই এগোতে চাই।
নিজের উত্থান সম্পর্কে ঐন্দ্রিলা বলেন, আমি নাচ শুরু করি ২০০৩ সাল থেকে। বাংলাদেশ শিশু একাডেমীতে নাচ ও গানের উপর কোর্স করেছি। এরপর নৃত্যম নৃত্যশীলন কেন্দ্রে শুদ্ধেয় গুরুমা তামান্না রহমানের কাছে মনিপুরি নৃত্যর তালিম নিয়েছি, এখনও নিচ্ছি। ২০০৬ সালে বাংলাদেশ মৌসুমী প্রতিযোগীতায় জাতীয় পুরস্কার পেয়েছি।

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীতে আমি নাচ ও গানে তালিকাভুক্ত শিল্পী হিসেবে আছেন ঐন্দ্রিলা। সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন প্রোগ্রামে তিনি দেশে ও বিদেশে যেমন নেপাল, ভারত, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ডসহ বিভিন্ন দেশে অংশগ্রহণ করেছেন। এছাড়া নাচে ইন্দোনেশিয়ান অ্যাম্বাসির সহ-নৃত্যশিল্পী হিসেবেও কাজ করছেন। গান শেখা সম্পর্কে এই শিল্পী বলেন, গানের শুরু ২০০৫ সালে সুরার্চনা সংগীতালয় থেকে। এর প্রতিষ্ঠাতা ভারতের প্রখ্যাত পন্ডিত অজয় চক্রবর্তীর ছাত্র শ্রদ্ধেয় রাম কুমার মল্লিক স্যারের কাছে শাস্ত্রীয় সংগীতের তালিম নিয়েছি। আমার গুরুজি গত বছরের ১৩ জুলাই পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছেন। নাচ ও গানের বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে আমি প্রথম হয়েছি।

ঐন্দ্রিলা আরো জানান, ছোটবেলা থেকে মৈত্রি সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত হয়ে তিনি অনেক মঞ্চনাটক করেছেন। তার মধ্যে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ’খ্যাতির বিড়ম্বনা’, ’ডাক ঘর’ উল্লেখযোগ্য। তিনি বলেন, আপনারা সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন, আমি যেন আমার মায়ের আশা পূরণ করতে পারি এবং সুন্দর সুন্দর গান উপহার দিতে পারি। ঐন্দ্রিলার জন্ম ১৯৯৮ সালের ১ অক্টোবর। তার বাবার নাম ইউসুফ আলী, মায়ের নাম নুপুর। গান ও নাচের পাশাপাশি ঐন্দ্রিলা পড়াশোনাও চালাচ্ছেন। তার ইচ্ছা বড় সংগীতশিল্পী হয়ে মায়ের মুখ উজ্জ্বল করা। ঐন্দ্রিলার কথা, ’জীবনে যা কিছু শিখেছি, যতটুকু পথ চলেছি, সেসবের অবদান আমার মায়ের।

প্রসঙ্গত, বর্তমান প্রযুক্তির যুগ। এই প্রযুক্তির একটি বিশেষ মাধ্যম ইউটিউব। এই মাধ্যমে ভিডিও আদান-প্রদান করা হয়। অনেক সেলিব্রেটিরা এই অনলাইন মাধ্যম ব্যবহার করে নিজেদের কাজের প্রচার প্রচরনা চালায়। এই মাধ্যম ব্যবহার করে খুবই স্বল্প সময়ের মধ্য দিয়ে অনেক মানুষের কাছে পৌছানো সম্ভব হয়। ভিডিও আদান-প্রদানের ক্ষেত্রে ইউটিউব এর গুরুত্ব অপরিসীম। বর্তমানে সমগ্র বিশ্ব জুড়ে ব্যপক জনপ্রিয়তা রয়েছে ইউটিউবের।