বিএনপির সামনে মামলার পাহাড়। দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া থেকে শুরু করে তৃণমূলের বেশির ভাগ নেতাই মামলার জালে বন্দি। প্রতিনিয়তই তাদের নামে মামলা হচ্ছে। দলটির চেয়ারপারসন যেদিন দণ্ডপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে যান সেদিনও দলটির নেতাকর্মীর নামে নতুন মামলা হয়েছে। মামলার কারণে নানা ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছেন দলের নেতাকর্মীরা। বাধ্য হয়ে তাদের আদালতে সময় দিতে হচ্ছে। পুলিশের ভয়ে এলাকায় থাকতে পারছেন না। এই মামলার প্রেক্ষিতে খুলনা বিএনপি এবং অঙ্গ দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে গত ১০ বছরে দায়েরকৃত ১১০টি মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়েছে। বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় জেলা প্রশাসক মো. হেলাল হোসেনের কাছে মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে একটি স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। স্মারকলিপি প্রদানের নেতৃত্ব দেন মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু।
স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, অতিসম্প্রতি খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ খুলনা মহানগরীর আট থানায় বিগত মেয়র ও জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে ও পরে ২০টি গায়েবিসহ ২৪টি নির্বাচনকালীন মোট ৪৪টি মিথ্যা মামলায় চার্জশিট প্রদান করেছে। এসব মামলার চার্জশিটসহ খুলনা বিএনপি ও অঙ্গ দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে গত ১০ বছরে দায়েরকৃত ১১০টি মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জোরদাবি জানানো হয়। জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদানকালে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শেখ মোশারফ হোসেন, জাফরউল্লাহ খান সাচ্চু, অ্যাডভোকেট বজলুর রহমান, শেখ ইকবাল হোসেন, শাহ্জালাল বাবলু, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম বাবু, সিরাজুল হক নান্নু, আসাদুজ্জামান মুরাদ, মেহেদী হাসান দীপু, আজিজুল হাসান দুলু, শাহিনুর ইসলাম পাখী, অ্যাডভোকেট গোলাম মওলা, জালু মিয়া, সাদিকুর রহমান সবুজ, সাজ্জাত হোসেন তোতন, শেখ সাদী, ইউসুফ হারুন মজনু, সাজ্জাদ আহসান পরাগ, মুর্শিদ কামাল, কেএম হুমায়ুন কবির, একরামুল হক হেলাল, হাসানুর রশিদ মিরাজ, শামসুজ্জামান চঞ্চল, মাহাবুব হাসান পিয়ারু, শরিফুল ইসলাম বাবু, নাজির উদ্দিন নান্নু, রবিউল ইসলাম রবি, জামিরুল ইসলাম, নেইমুল হাসান নেইম, বাচ্চু মীর, মেহেদী মাসুদ সেন্টু, ময়েজউদ্দীন চুন্নু, কাজী মাহমুদ আলী, মনিরুল ইসলাম, মোস্তফা কামাল। উল্লেখ্য, দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে তিন ডজন মামলা রয়েছে। ইতিমধ্যে এক মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। আরও একটি মামলার বিচার কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। দলের দ্বিতীয় ক্ষমতাবান ব্যক্তি বর্তমানে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকেও দুই মামলায় দণ্ড দেয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে সারা দেশে শতাধিক মামলা দেয়া হয়েছে। দণ্ডের তালিকায় আছেন ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকাও। দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বর্তমানে কারাভোগ করছেন খালেদা জিয়া।