ঘুষগ্রহণ ও দুর্নীতি-অনিয়মের অভিযোগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলার সদর ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মো. বজলুল হককে অবশেষে প্রত্যাহার করা হয়েছে।
বুধবার দুপুরে তাকে প্রত্যাহার করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সংযুক্ত করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খাঁন। খবর জাগো নিউজ

তিনি বলেন, তার (বজলুল হক) বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ পাওয়া গেছে। আমরা তাকে প্রত্যাহার করেছি এবং অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি। যদি অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায় তাহলে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এর আগে বুধবার দুপুরেই ওই ভূমি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষগ্রহণ ও দুর্নীতি-অনিয়মের অভিযোগ এনে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও স্মারকলিপি প্রদান করে ভুক্তভোগীরা। নাসিরনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয়ের সামনের সড়কে সর্বস্তরের জনগণের ব্যানারে এ কর্মসূচি পালিত হয়।

অভিযোগ রয়েছে, নাসিরনগর সদর ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মো. বজলুল হক ন্যূনতম ২০ হাজার টাকা ছাড়া কোনো জমির খারিজ দলিল করেন না। আর কাগজপত্রে কোনো ত্রুটি থাকলে তিনি (ভূমি কর্মকর্তা) পাঁচগুণ (এক লাখ) টাকা আদায় করেন। অথচ সরকার কর্তৃক ভূমির খারিজের ফি এক হাজার ১৫০ টাকা। চূড়ান্ত বিএস খতিয়ান আসার পরও দাগে সামান্য ভুল থাকলে জমির মালিকদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করেন বজলুল হক।

সূত্র:jagonews24