টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে ধানক্ষেতে আগুন দেয়া কৃষক আবদুল মালেক সিকদারের জমির ধান বিনা পারিশ্রমিকে কেটে দিলেন জেলার বিভিন্ন কলেজের শিক্ষার্থীরা। বুধবার দুপুরে উপজেলার পাইকড়া ইউনিয়নের বানকিনা গ্রামে গিয়ে মালেকের জমির ধান কাটার কাজে অংশ নেন ১৭ জন শিক্ষার্থীরা।
গত রোববার (১২মে) শ্রমিক সংকট, বেশি মজুরি ও ধানের মূল্য কম হওয়ায় উপজেলার বানকিনা গ্রামের কৃষক আবদুল মালেক সিকদার তার ধানক্ষেতে আগুন দেন। ক্ষেতে আগুন দেয়ার খবর জাগো নিউজসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচার হয়। এরই প্রেক্ষিতে কৃষক আবদুল মালেকের জমির ধান কেটে দেয়ার উদ্যোগ নেন জেলার বিভিন্ন কলেজের এই শিক্ষার্থীরা।

ধান কাটতে আসা শিক্ষার্থী কৃষ্ণ বলেন, টাঙ্গাইলে শ্রমিক সংকটের পাশাপাশি বেশি মজুরি হওয়ায় কৃষকরা তাদের ক্ষেতের ধান কাটতে পারছেন না। কৃষকের এই নির্মম দিনে তাকে সহযোগিতা করতে আমরা সবাই তার ক্ষেতের ধান কাটায় সহযোগিতা করছি। বাজারে শ্রমিকের মজুরি অনেক বেশি তাই আমরা স্বেচ্ছায় তার ক্ষেতের ধান কাটতে এসেছি।

কৃষক মালেক সিকদার বলেন, ক্ষোভে ধানক্ষেতে আগুন দিয়েছিলাম। খবর পেয়ে আজ দুপুরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা আমার ক্ষেতের ধান কেটে দেয়ার উদ্যোগ গ্রহণ ও এগিয়ে আসায় আমি অভিভূত হয়েছি। এই ধান কাটায় শ্রমিক মজুরি বাবদ ৪২০০ টাকা, তিন বেলা খাওয়াসহ থাকার ব্যবস্থা করা থেকে মুক্ত হলাম। শিক্ষার্থীরা তার ২৮ শতাংশ জমির ধান কেটেছে বলেও জানান এই কৃষক

তিনি আরও বলেন, অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগো নিউজ ২৪.কমে ধানক্ষেতে আগুন দেয়ার খবর দেখে সুপারশপ স্বপ্ন আমার জমির সকল ধান কিনতে আগ্রহ প্রকাশ করে। কিন্তু তাদের ধার্যকৃত সাড়ে ৬০০ টাকা দরে ধান বিক্রি সম্ভব হচ্ছে না।

সূত্র:jagonews24