বার বার গণশুনানির নাম দিয়ে গ্যাসের দাম বাড়ানো হচ্ছে, এর থেকে বড় প্রতারণা কি হতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী।
তিনি বলেন, গত ১০ বছরে মানুষের ক্রয় ক্ষমতা কমে গেছে। তারপরও গ্যাসের দাম বাড়ানো হচ্ছে, বিদ্যুৎতের দাম বাড়ানো হচ্ছে। দরিদ্র, নিম্ন আয়ের মানুষের জীবনযাত্রা কোথায় গিয়ে দাঁড়াচ্ছে! যেহেতু তাদের জবাবদিহিতা নাই, তাই তারা (সরকার) সব কিছু উপেক্ষা করে প্রত্যেকটা জিনিসের দাম বাড়াচ্ছে। এবং বাংলাদেশের দুই শতাংশ বা কয়েক শতাংশ মানুষের কাছে সব সম্পদ পুঁঞ্জিভূত। এরা হাজার কোটি, লক্ষ্য কোটি টাকার মালিক। এদের জন্য সরকারের সব নীতিমালা প্রণয়ন হচ্ছে। এদের মাধ্যমেই সরকার পরিচালিত হচ্ছে। এটা হচ্ছে নিম্নগামী যাত্রা।

আজ বুধবার (১৩ মার্চ) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। আলোচনা সভার আয়োজন করেছেন বাংলাদেশ জাতীয় দল।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আমির খসরু বলেন, বিএনপি এখন অনেক বেশি শক্তিশালী দল। আওয়ামী লীগ জোর করে ক্ষমতা দখল করে দেশ চালাচ্ছে বলে আমি মনে করি না বিএনপি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যারা জোর করে ক্ষমতা দখল নিয়েছে তারাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তারা এমন জায়গায় গিয়ে পৌঁছেছে তাদের ঘুরে দাঁড়ানোর কোন সুযোগ নেই। যেভাবে ঘুরে দাঁড়াতে পারে নাই বাকশাল করার পর। আজকে তারা একই অবস্থায় গিয়ে পৌঁছেছে। আজ তারা ঘুরে দাড়াতে পারবে না।

ডাকসু নির্বাচনে নিয়ে সাবেক এই বাণিজ্য মন্ত্রী বলেন, ডাকসু নির্বাচন দেখেন, নির্বাচন হলে তো আপনি আলোচনা করবেন। নির্বাচন হলে ভাল মন্দের প্রশ্ন আসে। নির্বাচনই তো হয়নি। বাংলাদেশের মানুষের নির্বাচনে কোন আস্থা নেই। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আপনারা দেখেছেন। এর থেকে লজ্জাকর রাজনীতিতে আর কিছু হতে পারে? বাংলাদেশের মানুষ কিভাবে প্রতিবাদ করে দেখেছেন মেয়র নির্বাচনে। ডাকসু নির্বাচনে রাতেই ব্যালট পেপারে সিল মারা হয়েছে তা বস্তায় বস্তায় ধরা পড়েছে। ৪২ হাজার ভোট গুণতে রাত ৩টা বেজে গেছে। আর আমাদের লাখ লাখ ভোট সন্ধ্যা ৬-৭ টার মধ্যেই রেজাল্ট শেষ।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আতাউর রহমান ঢালী, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাছের মোহাম্মদ রহমতউল্লাহ, কৃষকদল সদস্য মাইনুল ইসলাম, লায়ন মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার, কে এম রকিবুল ইসলাম, আয়োজক দলের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সৈয়দ এহসানুল হুদা প্রমুখ।

সূত্র:বিডি২৪লাইভ